অনলাইন ডেস্ক

ফিলিপিন্সে নির্দেশ থাকার পরও যারা করোনা টিকা নেননি, তারা ঘর থেকে বের হলেই গ্রেপ্তার করা হবে বলে হুমকি দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতের্তে। এর আগে, দেশটিতে যারা টিকা নেনটি, তাদেরকে ঘরে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
শুক্রবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, দেশটিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ তিন মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে।
এ পরিস্থিতিতে গত বৃহস্পতিবার টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে দুতের্তে বিভিন্ন এলাকার নেতাদেরকে টিকা না নেওয়া মানুষের ওপর নজর রাখতে এবং তারা যেন ঘরের ভেতর থাকে তা নিশ্চিত করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, যদি ওই ব্যক্তি তা মানতে রাজি না হন, যদি তিনি ঘরের বাইরে যান, এলাকায় ঘুরে বেড়ান, তাহলে তাকে আটকানো হবে, যদি তিনি তাও না মানেন দায়িত্বপ্রাপ্তদেরকে অবাধ্য ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।
দুতের্তে বলেন, ফিলিপিন্সের প্রত্যেক নাগরিকের নিরাপত্তা ও ভালো রাখার দায় আমার।
উল্টোপাল্টা কথা বলার জন্য দুতের্তের খ্যাতি আছে। গত বছর তিনি টিকা নিতে অস্বীকৃতি জানানোদের জেলে পাঠানো বা শরীরে পশু চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধ ঢুকিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন।
ফিলিপিন্সে শুক্রবার পর্যন্ত ওমিক্রনে আক্রান্তসহ মোট ১৭ হাজার ২২০ নতুন কোভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে; ২৬ সেপ্টেম্বরের পর দেশটি আর কখনোই এত রোগী দেখেনি।

সব মিলিয়ে দেশটিতে শনাক্ত কোভিড রোগী সংখ্যা ২৮ লাখ ৮০ হাজার পেরিয়ে গেল। এর মধ্যে ওমিক্রন আক্রান্ত ৪৩ জন শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে কোভিডে মৃত্যুও ৫১ হাজার ৭০০ ছাড়িয়েছে।
এ পর্যন্ত ফিলিপিন্সে ১১ কোটি জনসংখ্যার মধ্যে ৪ কোটি ৯৮ লাখ মানুষ কোভিড টিকা পেয়েছেন।

ফিলিপিন্সে এখন পর্যন্ত অন্য দেশ থেকে আসা ও স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত মিলিয়ে ওমিক্রনে আক্রান্ত ৪৩ জন শনাক্ত হয়েছে, যা দেশটির সরকারকে নতুন বিধিনিষেধের দিকে ধাবিত করেছে।